গল্প : ভাবি যখন বউ (পর্ব: ১৫তম)

583

আমাকে তুমি সত্যি ঠকিয়েছো কাজল । তোমার সাথে তো আমার এরকম কোন কথা ছিল না। আমরা তো বলেছিলাম যে সারাজীবন সুখে-দুখে একসাথে থাকবো তাহলে কেন তুমি আমাকে ছেড়ে চলে গেলে।। আমি পাগল হয়ে ছিলাম বলে কি তোমার প্রতি আমার ভালোবাসা কমে যাবে নাকি আমার প্রতি তোমার ভালোবাসা কমে যাবে। আসলে কাজল আজ বুঝলাম পৃথিবীতে ভালোবাসা বলতে কোন কিছু নেই। যেটা আছে সবটাই স্বার্থ । স্বার্থ ছাড়া মানুষ এক পাও এগোয় না। তুমি ও তা করছে ।

কাজল আমি শুধু তোমায় ভালোবেসে ছিলাম। আর আমার ভালোবাসার মূল্য তুমি আমাকে এভাবে দিলে !!! তোমার পেটে আমার সন্তান । সন্তানের দোহাই দিয়ে তুমি আমার কাছে থাকতে ।কিন্তু না তুমি চলে গেলে কাজল আমাকে ছেড়ে ।। কি পেয়েছো তুমি আমাকে ছেড়ে চলে গিয়ে বল কাজল বল।

তখন কাজল বলতে লাগলো :
শোনো রাতুল আমি তোমাকে ঠকাতে চাই নি । আসলে আমার পরিবার আমার উপর প্রচুর চাপ দিচ্ছিল আর বলছিল এই পাগলের ঘরে আর যেতে হবে না। তোকে অন্য কোনো ছেলের কাছে বিয়ে দেবো । আমি কোনভাবেই রাজি ছিলাম না তারপরে আমার উপর অনেক চাপ দিচ্ছিল। তারপর আমি রাকিবকে বিয়ে করি সেজন্য যদি আমি কোন অপরাধ করে থাকি তাহলে আমাকে মাফ করে দিও আর শোনো তুমি যে বলতেছো আমার পেটে তুমি সন্তান ধারণ করিয়েছিলি সেটা ভুল। আসলে সেটা তোমার না সেটা হচ্ছে রাকিবের সন্তান।।

রাতুল: কি বলছো এসব???
কাজল: আসলে আবাক হওয়ার কিছুই নেই। আমাদের ভালবাসাটা ছিল অনেক আগে থেকেই কিন্তু আমরা একে অপরকে পাই নি । আমাদের ভাগ্য খারাপ ছিল।আর তখন আমি জানতাম না রাকিব যে তোমার আপন ভাই । সেও তো ওই দিন তোমার বিয়েতে যাইনি সেজন্য আমি ওকে চিনি নি। তারপরে যখন তোমাদের এখানে এসে দেখতে পারি রাকিব তোমার ভাই তখন আমি ওকে পেয়ে খুব স্বাচ্ছন্দ্যে জীবন কাটাতে লাগলাম।। দিকে তোমার শেয়ার মার্কেটের ব্যবসা ডাউন হয়েছে তুমি হয়ে যাও পাগল।।

আর শোনো এতে তোমার ভাই রাকিবের কোন হাত নেই সব দোষ আমারই। আমি করেছি এসব।

রাতুল : কাজল তুমি এসব কেন করেছো? কাজল তুমি আমাকে একবার বলতে যে তুমি আমাকে ভালোবাসো না তুমি বাসো রাকিবকে ।আমিতো তোমাকে ভালবেসে ছিলাম।তখন তো তুমি বলেছিলে তুমি কাউকে ভালোবাসো নি । তুমি কাউকে ভালোবাসো না তাহলে আজ কেন তুমি এইসব কথা বলছো??

কাজল: আসলে আমি এমন একটা মানুষ। যখন যেটা মন চায় সেটাই আমি করি । নিজেও জানিনা আমি কেমন যে । যা মন চায় তাই করে বেড়ায় আর পরে কি হবে সেটা একটু চিন্তা করি না ।এটা হয়তো আমার বদভ্যাস একটা। এই একটা বদঅভ্যাসের জন্য আমি অনেক অনেক বকা খেয়েছি এবং অনেক জায়গায় প্রতারিত হয়েছি।

রাতুল: তুমি আমার সাথে এত ষড়যন্ত্র করতে পারলে। আমার ভাবতে অবাক লাগতেছে আজ।

কাজল: শোনা আমি তোমাকে এইসব কথা বলতে আসি নি ।আমি তোমাকে দেখতে এসেছিলাম এক নজর আমার দেখা শেষ । তুমি নিশ্চয়ই ভালো আছো। হ্যাঁ আমিও ভালো আছি। এখন তোমাকে আমি একটা সাজেশন দিতে চাই সেটা হচ্ছে তুমি নতুন করে কাউকে বিয়ে করে সংসার করো আর রাকিবের ছেলের দিকে কখনো হাত বাড়িও না।

রাতুল: আমি আর কখনো বিয়ে করবো না !বিয়ে করার স্বাদ আমার মিটে গেছে।। আমি আর কখনো বিয়ে করতে চাই না।।

কাজল; কেন তোমার কি হয়েছে?
রাতুল : পৃথিবীর সব মেয়েরাই এক। তোদেরকে আমার বোঝা হয়ে গেছে আর না একটু একা থাকতে চাই একাই শান্তি পেতে চাই ।কাউকে অংশীদার করে নিজের স্বার্থ টাকে অশান্তি করতে চাইনা।।

তখন এইসব কথা বলতে বলতে রাতুলের কান্না কান্না ভাব আর তখনই কাজল এসে রাতুলের এর পাশে বসলো।। আর রাতুলের কপালে ও মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে আর বলছে আমাকে তুমি ভুলে যাও।।

ঠিক ওই মুহূর্তে রাকিব এসে হাজির। সে দেখতে পেল কাজল রাতুলের মাথায় কাজাল হাত বোলাচ্ছে।
রাকিব বাড়িতে কাজলকে না পেয়ে সব জায়গায় তন্ন তন্ন করে খুঁজে কিন্তু কোথাও না পেয়ে তখন সে এটা চিন্তা করে হয়তো রাতুলের এখানে আসতে পারে তার ধারণা একদমই ভুল নাই। তাই সে এখানে দ্রুত আসে আর দ্রুত এখানে এসেই সে এসব দেখতে পারে এসব দেখে তার মাথাটা পুরোটাই ঘুরে যায়।।

এবং জোরে একটা চিৎকার দিয়ে বলতে লাগলো
কাজল….. তুই এখানে কি করছিস..

চলবে….
সাথে থাকুন ধন্যবাদ

গল্প : ভাবি যখন বউ
পর্ব: ১৫তম পর্ব
লেখক : S M Rony Chowdhury

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here