গল্প : ভাবি যখন বউ (৮ম পর্ব)

1676

রাকিব ও তার ভাবি কাজল দুজনে ছাদে বসে আছে । মুক্ত আকাশের নিচে হালকা একটু -বাতাস বইতেছে ।

আকাশটা ছিল মেঘলা ।। পুরো আকাশটা জুড়ে যেন একটা কান্না কান্না ভাব ।। কাজল তার দুঃখের কথা শেয়ার করতেছে রাকিবের সঙ্গে।। সে নিজেকে দোষারোপ করতেছে সে নিজের ভালোবাসা ভালোলাগা চিনতে পারে নি। সে নিজেকে নিজে চিনতে পারেনি যার জন্য তার জীবনে এইরকম একটা কষ্ট পেতে হচ্ছে ।।

তো দুজনে অনেক কথাবার্তা বলতে বলতে পুরো বিকালটা কাটিয়ে দেয় এবং কাজলের অনেক কষ্ট শেয়ার করে রাকিবের সাথে। আর রাকিব শুধু ওগুলো শুনেই নিজ থেকে কোন কিছু বলার সুযোগ পাইনি। তবে তার কথা বললেও তো কাজল শুনবে না তার বুকের চাপা কথা কেউ তো বোঝার চেষ্টা করে না।। সেজন্য রাকিবের কথাগুলো তার বুকে চাপা দিয়ে রাখে…

এভাবে কাটতে থাকে আরো কিছুদিন।।
একদিন রাকিবদের বাসায় বেড়াতে আসলো এক দূর সম্পকের দুলাভাই।।

দুলাভাইয়ের চরিএ তেমন ভাল ছিল না। কেমন একটা খারাপ নজর দিয়ে কাজলের দিকে বারবার তাকাচ্ছে..

কাজল ভেবেছিল দুলাভাই হয়তো ভালো হবে। হয়তো মজা হবে কিন্তু তা নয় । তার কাছ থেকে সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা করতে থাকে ।। আর সব সময় খারাপ খারাপ প্রশ্ন করত কাজলকে…

একটা ঘটনা শেয়ার না করলেই নয়। একদিন বাসায় কেউ নাই শুধু রাকিব কাজল আর ওই দুলাভাই।।
রাতুল চলে গেছিল অফিসে আর তাদের মা চলে গিয়েছিল তার বোনের বাড়িতে।

বাসাতে শুধু তারা তিনজনই আছে। তো রাকিবের ভাবি রান্না করতেছে এমন সময় হুট করেই ওই দুলাভাই রান্নাঘরে ঢুকলো..

দুলাভাই: কি করো কাজল??
কাজল : রান্না করছি দুলাভাই।।
দুলাভাই : আসলে তোমার রান্নার আলাদা প্রশংসা না করলেই নয় সত্যিই তোমার রান্না অনেক সুন্দর।। কি রান্না হবে আজ??

কাজল :: হাসিখুশি মুখে বলতে লাগলো আজ মাংস রান্না করতেছি আর মাছ ভাজি, বড়া ইত্যাদি

দুলাভাই : ভালো সেই খাবার হবে আজকে । আসলে তোমার হাতে রান্নার গুণ অনেক ।। এত সুন্দর এত ভালো তোমার হাতটা না দেখলেই নয় দেখি তো তোমার হাতটা ।

কাজাল : হাত দেখে কি করবেন ??
দুলাভাই : আরে কী বলো হাতেই সব গুন থাকে ।। জানো তোমার আপুর হাতটা একদম কালো ।রান্নাও বেশি ভাল হয় না। খেতেই মন চায় না।
আর নিশ্চয়ই তোমার হাত সুন্দর এইজন্য তোমার রান্না ভাল।।

কাজল: কি যে বলেন আপনি।।
দুলাভাই : কই দেখাও..

(এই বলে যখনই কাজল ঘুরে তার হাতটি দেখাবে তখনই কাজলের বুকের কা’পড় টি পড়ে যায়। এটা থেকে তো দুলাভাই মার্বেলের মতো তাকিয়ে আছে ফেল ফেল চোখে।। মুহূর্তের মধ্যেই দুলাভাই কাপড় ধরে ফেললো আর বলতে লাগলো থাক না সুন্দর তো…

কাজল রেগে মেগে আগুন হয়ে যাচ্ছে
আর বলতেছেন আপনি তো খুব পচা লোক বজ্জাত লোক ছাড়েন বলছি..

দুলাভাই তো কিছুতেই ছাড়ছেন না। কি করতে চাচ্ছে?

তখন দুলাভাই বলতে লাগলো ::
এত সুন্দর জিনিস । দেখি না একটু!! আমিতো আর হাত দেই না শুধু দেখতেছি একটু দেখতে দাও..

কাজল জোর করে ছাড়তে চেষ্টা করল কিন্তু তবুও ছাড়ছেতে না। তখন কাজল জোরে একটা ধমক দিল ।।ধমক শুনে ভিতর থেকে রাকিব বলতে লাগল কি হয়েছে ভাবি??

তখনই দুলাভাই হুড়মুড় করে ছেড়ে দিল
আর কাজল দৌড়ে দিয়ে তার রুমে চলে যায়।।রুমে কাজল দরজা বন্ধ করে দেয়।।

দুলাভাই বাড়ি থেকে বেড়িয়ে আসে ঘোরাফেরা করার জন্য।। এদিকে কাজল রুম থেকে বেরিয়ে এসে আবার রান্না শুরু করে দেয়।।

কিছুক্ষন পরে রাকিব আসে রাকিবের সাথে শেয়ার করে বিষয়টা..

রাকিব বলেছিল আজ এই দুলাভাইকে সে শেষ করে দিবে ।যার চরিত্র এত খারাপ । আরেকবার আজকে রাখি তোকে খু’ন করে দেবে ।। কথা গুলো হয়তো ওই বজ্জাত দুলাভাই এর কান পর্যন্ত পৌঁছেছে সেজন্যই উনি আর এই বাড়িতে আসেন না।।।

আর এদিকে রাকিবের তো মাথা গরম কাজলের কোন কিছু হলে রাকিব তো দেখতেই পারে না ।।আর এখানে নি র্যাতন হয়েছে সেটা তো আরো ভয়ঙ্কর।।

তবে এখন থেকে রাকিবের সঙ্গে কাজলের একটু বেশি হয়ে যাচ্ছে।
সারাদিন কাজল রুমে একা একা থাকতে হয় কেউ নেই যে কথা বলার সেজন্যই কাজল রাকিবের সঙ্গেই বেশিরভাগ সময়ই পার করে।।

শেয়ার মার্কেটের ব্যবসায় লস হাওয়ায়
রীতিমতো আধমরা পাগল হয়ে গেছে রাতুল । বাড়িতে ঠিকমতো আসে না খাওয়া দাওয়া ও করে না ।কাজলের উপর মারামারি ও বেশী করে।।

কেউয়ের সাথে ভাল ব্যবহার করে না। সবসময় ছটফট করে আর অসহ্য রকমের যন্ত্রণা করে থাকে । ধূমপান আর ম’দ খাওয়া শুরু করে দিয়েছে রাতুল।

অন্যদিকে রাকিব আর কাজলের সম্পর্কটা তো এমনিতেই আগে থেকেই গভীর ছিল এখন দুজনের পাশাপাশি থাকা সত্ত্বে সম্পর্কটা আরও গভীরে চলে যাচ্ছে।

এদিকে রাতুল ঠিকমত বাসায় আসে না।
কাজলের একা থাকতে পছন্ড ভয় পায় সেজন্য রাকিবের সঙ্গে চলে আসে।। রাকিব ওনার সাথে থাকতে চায় না কেননা উনি তো আর রাকিবের বউ না সেজন্যই।।

কিন্তু কি করবে কাজল সেতো পাগলীর মতো যেটা বলে সেটাই করে থাকে। আসলে কাজল এমনই।।

এক কথার মানুষ যেটা মুখ থেকে বলে থাকে সেটাই করে থাকে। সেজন্যই মাঝে মাঝে রাতুল বাসায় না আসলে সে রাকিবের সঙ্গেই থাকে । কিন্তু রাকিব এটা মানতে পারে না । যদি এটা সমাজের মানুষ জন দেখতে পারে কিংবা কেউ দেখে ফেলতে তাহলে তো এটা খুব খারাপ হয়ে যাবে।।

রাকিব কাজল থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করে কিন্তু কাজল রাকিবের খুব কাছে আসার চেষ্টা করে ।।
কাজল রাকিবের কাছে কি চায়???

কি চাই সেটা হয়তো সময়ই বলে দেবে….

সাথে থাকুন ধন্যবাদ

চলবে…

গল্প : ভাবি যখন বউ
পর্ব:৮ম পর্ব
লেখক : S M Rony Chowdhury

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here