গল্প : ভাবি যখন বউ (পর্ব:৫ম পর্ব )

959

অন্যদিকে রাকিবের সব শেষ । বাড়িতে গেলেই কি আর হবে । এই ভেবেই সে এই হোটেলেই পড়ে আছে।।

একদিন সে পড়ন্ত বিকালে বাহিরে বের হয়েছে একটু আলো-বাতাস খাওয়ার জন্য তখন তার মার কথা খুব মনে পড়ছে কেননা প্রায় এক মাস চলে যাচ্ছে তার মাকে সে দেখে না খুব মনে পড়ছে।।

ভাবতেছে একা একা না জানি তার মা তার জন্য কত কষ্ট করতেছে।। তার উচিত ছিল বাড়ি থেকে জানিয়ে আসাটা এভাবে ফট করে চলে আসা হয়তো তার পরিবারের খারাপ প্রভাব ফেলবে।।

শুধু এতোটুকুই ভেবে সে বাড়িতে যাওয়ার জন্য রওনা হচ্ছে কেননা মায়ের মত যে আর কেউ ভালবাসে না। মা যে সব থেকে প্রিয় ।। বারবার মনে পড়ে যাচ্ছে সেই মাকে যার কোলেতে জন্ম হয়েছে ।।
তাকে ছেড়ে সে থাকতে পারতে না।।

হৃদয়ের ভিতর কষ্ট টা কিছুটা জমা হয়ে গেলেও তার মায়ের কথা খুব মনে পড়তেছে সেজন্য সে সবকিছু ছেড়ে বাড়ি থেকে রওনা হচ্ছে ।।

সে জানে বাড়িতে গেলে তার কষ্টটা আবার মনে পড়ে যাবে বাড়িতে গেলে তার সেই পুরানো কথাগুলো আবার হৃদয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করবে । কেননা যার সাথে রিলেশন করত সেই তো তার বড় ভাইয়ের বউ। তাকে ভাবি ডাকতে হবে এবং তাকে সারাক্ষণ দেখতে হবে বাড়িতে।।

যাক এত শত চিন্তা না করে সে রওনা হলো বাড়ির দিকে । কেননা বাড়ি তার একমাত্র এখন গন্তব্য। যাক না জীবন থেকে একটি মেয়ে চলে তাতে কি হয়েছে আরো তো মেয়ে আছে পৃথিবীতে । নিজেকে সান্ত্বনা দিয়ে সে বাড়ি থেকে রওনা হচ্ছে।।

অবশেষে বাড়িতে পৌঁছলো সবাই হাসিখুশি ভাব ।
আর বলতেছে এতদিন কোথায় ছিলি? তোকে তো আমরা তন্ন তন্ন করে খুঁজেছি। কিন্তু কোথাও পাইনি কোথায় ছিলি তুই? রাতুলের বিয়ের পর থেকে তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তুই কোথায় হারিয়ে গিয়েছিলে ? তোর কি হয়েছিল সবকিছু আমাদের খুলে বল??

রাকিব কোন প্রশ্নেরই উত্তর দিল না! সোজা চলে গেল তার মায়ের কাছে । তার মাকে সে সালাম করল আর মাকে বলল মা তুমি আমার জন্য মনে হয় অনেক কষ্ট করেছ।

আমি তোমার কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি মা। আমাকে তুমি ক্ষমা করে দাও আর বলছি তোমার ছেলে তোমাকে ছেড়ে আর কোথাও যাবে না । আর আমাকে এই নিয়ে কোনো প্রশ্ন করো না তোমার আমি তাতেই খুশি থাকব।

মা: ওকে বাবা তুই ফিরে এসেছিস এটিতেই আমরা খুশি । তোকে আর কোন প্রশ্ন করবো না । তুই যেখানে ছিলে না কেন তুই নিশ্চয়ই ভালো ছিলে । তাই তুই এসেছিস রে । এতে আমরা অনেক আনন্দিত ।তোর চলে যাওয়ার কারণটা আমরা জানতে চাইবো না কখনোই।।

তখন রাকিব বলল তার মাকে…
মা ভাইয়াকে দেখলাম বাসায় কিন্তু ভাবি কোথায় ওনাকে দেখতেছি না। নতুন ভাবি আমি তো এখনো একবারও দেখিনি কোথায় উনি কোথায়??

মা: তোর ভাবি তো ওর বাপের বাড়ি বেড়াইতে গেছে । কাল নাকি চলে আসবে।বাহ তাহলে তো ভালোই হলো তোকে পেয়ে কাল তো তোর ভাইয়ের অফিস আছে তাহলে তুই গিয়া তোর ভাবির বাড়িতে গিয়ে কাল নিয়ে আসবি।

রাকিব: না মা। আমি যেতে পারব না। আমার এখন সময় নেই।

মা: তোর ভাইয়া বলতেছে তোকে যেতে হবে। নতুন বিয়ে বলে কথা তুই এখনো একবারও ওখানে বেড়াতে যাস নাই য় আর তোর ভাবী কেউ এখনোও তুই ভালো করে চিনিস নাই কথা বলিস নাই তুই যাবেই।

এত জোরাজুরি করার পরে রাকিব আর কি করবে রাজি না হয়ে। না হয়তো সন্দেহ করবে সেজন্য রাকিব রাজি হয়ে গেল যাওয়ার জন্য কালকে।।

রাকিব মনে মনে ভাবতেছে হে আল্লাহ আজকে যাচ্ছি আমার এক্স গার্লফ্রেন্ডকে আনতে। এদিকে আমার বড় ভাইয়ের বউকে আনতে। হে আল্লাহ তুমি হয়তো আমার কপালে এটা দেখার জন্য কি বাকি রেখেছিলে?? আর কি কি আছে সবকিছু দেখিয়ে নাও আমাকে।।

অবশেষে রাকিব রওনা হলো তার ভাবিকে মানে তার সাবেক গার্লফ্রেন্ডকে আনতে। তাদের বাড়িতে যাওয়ার জন্য।

বাড়িতে গিয়ে যখনই কাজল রাকিবকে দেখতে পেল তখনই বলতে লাগলো :

কাজল: দোস্ত তুই এতদিন পরে??
কোথায় ছিলে এতদিন ??তোকে আমি এতবার ফোন দিয়েছি তুই ফোন রিসিভ করস না। অনেক বার ফোন বন্ধ দেখাচ্ছিলো । তর সাথে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছি কিন্তু যোগাযোগ করা আর হলো না কোথায় ছিলি তুই?? আর আজকে হঠাৎ আমার বাড়িতে তুই বাড়ির এড্রেস কিভাবে চিনলি??

রাকিব: একটু হাসিমুখে বলতে লাগল হ্যাঁ চিনে গেছি । এখন চলো আমার সাথে । ও সরি এখন চলেন ভাবি আমার সাথে ।।

কাজল: কিরে দোস্ত তুই আমাকে ভাবি ডাকছিস কেন ?? আর তর সাথে আমি কোথায় যাব এখন??

রাকিব: ওমা তোর সাথে যার বিয়ে হয়েছে তার ঘরে তোকে পৌঁছে দিয়ে আসবো। আজকে তো তর যাওয়ার দিন।

কাজল: তুই কি করে জানলি যে আমার বিয়ে হয়ে গেছে আর তুই কি বাড়ি চিনিস যেখানে আমার বিয়ে হয়েছে??

রাকিব: কি করে চিনবো না আমিতো সেই বাড়িটিরই একজন।

কাজল: তাই নাকি।। ও তুই তাহলে সে রাকিব একমাস ধরে যে পলাতক।।

রাকিব: পলাতক না । একটা কাজে গিয়েছিলাম সেজন্যই বাড়ি থেকে না জানিয়ে হঠাৎ করে চলে গিয়েছিলাম। জরুরী কাজ ছিল তো তাই।

কাজল: তর আবার কি কাজ?

রাকিব: সব কথা পরে বলবো নে এখন চল তোকে বাড়ি নিয়ে যাই।

কাজলকে নিয়ে বাড়ির দিকে রওনা হলো রাকিব ।।।
কাজল কে রাকিব যতবার দেখেছি ততবার তার কষ্টটা বেশি বারতেছে। কিন্তু সে কাজলকে তার কষ্ট টা বুঝতে দিচ্ছে না । তবে কাজল ও কিছুটা ফিল করতেছে তার কষ্টটা । সে মনে মনে ভাবছে যে তাকে ভালোবাসতো আর সে তার ভালোবাসার মূল্য দেয়নি ।

হঠাৎ করে কাজল রাকিবকে বলে বসল::
কাজল: কিরে তুই এখনো কি আমায় ভালোবাসিস??

রাকিব: চুপ করে রয়েছে । কিছু বলছে না । মনটাকে স্থির করে নিজ দিকে তাকিয়ে আছে।

চলবে…

গল্প : ভাবি যখন বউ
পর্ব: ৫ম পর্ব
লেখক : S M Rony Chowdhury

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here