গল্প : ভাবি যখন বউ (৩য় পর্ব)

1096

রাতুলের মা মেয়েটাকে কিছু প্রশ্ন করছে…

রাতুলের মা : তোমার নাম কি গো মা??
মেয়ে : আমার নাম মুসলিমা বিনতে কাজল।

(( একে একে আরো অনেক প্রশ্ন করতে থাকলো রাতুলের মা । )) রাতুল ও কাজলকে কথা বলার জন্য সময় দেওয়া হলো একটা রুমে।

রাতুল: আমাকে কি আপনার পছন্দ হয়েছে ??
কাজল কিছু বলছে না মাথা নিচু করে আছে তারমানে বুঝা গেছে যে পছন্দ হয়েছে।।
একই প্রশ্নটা কাজল আবার করলো রাতুলকে…

কাজল: আমাকে কি আপনার পছন্দ হয়েছে ??
রাতুল: জি খুব পছন্দ হয়েছে।
কাজল: খুব?? এক দেখাতেই?
রাতুল: না এক দেখাতেই না । আমি আপনাকে আরও আগেই দেখিছি।।
কাজল: কোথায়??
রাতুল: সে অনেক কথা । বিয়ে পরে বলবো।।আচ্ছা আপনার তো কোনো রিলেশন নাই তো আবার ।
কাজল: ( হাসি দিয়ে) জি না। আপনার?
রাতুল: না নাই।।
……………………….
অবশেষে মেয়ে দেখে 1001 টাকা মেয়ের হাতে উপহার দিল রাতুলের মা । তাদের মেয়েকে খুব পছন্দ হয়েছে।
পছন্দ হবেই না কেন মেয়েটাকে ফেলার মত নয় যেমন দেখতে সুন্দর তেমনি গায়ের রং তেমনি উচ্চতা । সব মিলিয়ে অন্যরকম । এরকম মেয়ে পাওয়া খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে এ যুগে।

যাইহোক হাসিখুশি মুখে বাড়ি ফিরে এলো রাতুলের মা এবং রাতুল। বাড়িতে এসে সব খুলে বলল রাকিবের সাথে। রাকিব এটা শুনে তো মনে মনে বেজায় খুশি কেননা ওর ভাইয়ের বিয়ে হবে তারপরে তার বিয়ে।

মা বললো রাকিবকে তোকে কি বলল আমরা তো মেয়ে দেখে আসছি আমাদের তো পছন্দ হয়েছে এখন একবার তুই গিয়ে দেখে আয় । রাকিব বলল আমার আর দেখতে হবে না তোমরা দেখেছো তাতেই হবে । কেননা তোমাদের দেখাতেই হবে আমি জানি। সমস্যা নাই আমার দেখতে হবে না আমি না হয় বিয়ের পরেই দেখব ভাবিকে । আগে বিয়ের কাজটা শেষ করি।

রাকিব তো এটার জন্যই অনেকদিন কষ্ট করতে হচ্ছে তাকে আর এখন বিয়েটা হয়ে গেলেই আর কষ্ট করতে হবেনা দ্রুত তার বিয়ে হয়ে যাবে । তার লাইন ক্লিয়ার হবে।।

বিবাহের দিন ঠিক করা হল সামনের শুক্রবার । খুব দুমদাম হয়ে বিয়ে আয়োজন করা হচ্ছে।। বিয়ের আয়োজন করা সবকিছুই করতেছে রাকিব। বড় ভাইয়ের বিয়ে বলে একটা কথা। সবকিছু আয়োজন করতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে রাকিব।।

এদিকে রাতুল ও তার হবু বউ ফোনে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে । সারাক্ষণ ফোনে কথা বলে । পরবর্তী জীবনের প্ল্যান কি ।।
কি করবে ইত্যাদি বিষয় নিয়ে সারাক্ষণ কথা বলতে থাকে ।।

অন্যদিকে রাকিব ব্যস্ত পরেছে বিয়ের আয়োজন করাতে । বড় ভাইয়ের বিয়ে বলে কথা। সব কিছু আয়োজন ঠিকঠাক মতোই করতে হবে। নয়তো মানুষ মন্দ বলবে।

যেহেতু বিয়ের সময় অল্প তাই সবাই দ্রুত কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। এদিকে সব আয়োজন রাকিব করেছে। রাকিব সবকিছু পিছনে ফেলিয়ে বিয়েটা শেষ করার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে । কেননা এ বিয়েটাই তার পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে সে কাঁটা দূর করতে চায়।

বিয়ের দিন চলে আসলো দেখতে দেখতে। কাল শুক্রবার কাল যাবে বউ আনতে। বিয়ে বাড়িতে তেমন বড় আয়োজন নয় মাত্র কয়েকজন যাবে কনে আনতে। রাকিবের বন্ধু-বান্ধব রাতুলের বন্ধু-বান্ধব নিবে না শুধুমাত্র এলাকার কিছু মুরুব্বি নিয়ে বউটা নিয়ে আসবে।

সকাল শুরু হয়ে গেল সবাই রেডি হয়ে গেছে বিয়ে বাড়িতে যাওয়ার জন্য

রাতুল সবাইকে সালাম করেছে…
সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়েছে উদ্দেশ্য
হলো বিয়ে বাড়ির দিকে ।।
রাকিব ও সাথে যাচ্ছে। কিন্তু রাকিব কখনোই যায়নি ওই বাড়িতে এবং মেয়ে কেউও দেখিনি এটাই তার নতুন যাওয়া।

অবশেষে বিয়ে বাড়িতে সবাই গিয়ে পৌঁছল ।বিয়ে বাড়িতে সবকিছু ঠিকঠাক বিয়ের সব আয়োজন।

খাওয়া-দাওয়া কোন কিছুতেই কোন কমতি রাখেনি পুরা মন ভরে দিয়েছে ওদের।

অবশেষে 10,001 টাকা ধার্য করে বিয়ের কাজ সম্পন্ন করা হলো। এখন প্রায় সন্ধা ঘনিয়ে আসছে এখন বাড়ি ফিরতে হবে। বউ নিয়ে সবাই বাড়ির দিকে রওনা হবে।

বাড়িতে এসে বধূবরণ হচ্ছে। বউকে সবাই সাদরে গ্রহণ করছে। বউকে যখন বাড়িতে এনে রাখা হয়। এক নজর রাকিব গিয়েছিল দেখতে। বড় ভাইয়ের বউ বলে কথা একটু দেখতেই হবে।

বউ ঘোমটা দিয়ে আছে কেউ ঘুমটা সরাচ্ছে না। রাকিব তার এক খালাতো বোনকে বল়লো তাকে তার ভাবিকে দেখাতে।

বোনটি দেখাচ্ছে না । রাকিব বারবার বলছে দেখা না ভাবিকে একটু দেখি..

বোনটি বলল দেখাবো ভাইয়া আগে আমাকে খুশি করো । আমাকে বকশিস দিতে হবে। তখন রাকিব পকেট থেকে 100 টাকার একটা নোট বের করে ওই বোনকে দিল। বোনটি খুশি হয়ে বউয়ের ঘোমটা খুলে দেখালো।

রাকিব ওর নতুন ভাবির মুখটি দেখা মাত্রই হোঁচট খেয়ে যায়। এ কি দেখলো?? আজব তো ।। সব কিছুই ঝাপসা কেন লাগছে।। এইতো বউ না এটা হচ্ছে রাকিবের বন্ধু কাজল যাকে সে ভাবছিলো বিয়ে করবে।।

হায়রে কপাল রাকিবের কপাল পুরাটাই ভেজ্ঞে গেল মনে হচ্ছে ।।

রাতুলের সাথে যে মেয়েটির বিয়ে হয়েছে সেই ছিল রাকিবের প্রেমিকা । যে কিনা রাকিব মনে মনে ওকে ভালোবাসতো কিন্তু কখনো ফুটিয়ে বলেনি ।। আজ তারই বিয়ে হয়েছে তার বড় ভাইয়ের সাথে।

রাকিবের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়লো।।
সে কি করে করতে পারল এটা একবারও প্রয়োজন মনে করল না জানানোর।
একবারও প্রয়োজন মনে করল না যে বন্ধুর সাথে সে আনন্দে , বেদনায় সব সময় কাটিয়েছে সে কি করে করতে পারল এটা।।

রাকিব খুব অসহায় হয়ে পড়ে।।কিন্তু ওই কাজল ভাবি কিংবা বান্ধবী যাইহোক সে এখনো রাকিবকে দেখিনি সে নিচের দিকে তাকিয়ে আছে। কেননা নতুন বধু উপর দিকে চোখে চোখে তাকাতে নেই ।।

অন্যদিকে রাকিবের মাথায় যেন আকাশ ভেঙ্গে পড়লো । কি পরিকল্পনা করেছিল আর কি হলো । আজ সবই শেষ হয়ে গেল ওর । সেটা কি ওর সাথেই হওয়ার কথা ছিল।।

এ সব ভাবতে ভাবতে বাড়ি থেকে চলে আসে রাকিব , এক ঝটকায় বাড়ি থেকে চলে আসে ।। কোথায় যাবে কাউকে বলে আসেনি। শুধু মনটা খারাপ করে। মনে মনে কান্না করতে করতে চলে আসে তার বাড়ি থেকে।।

চলবে…

গল্প : ভাবি যখন বউ
পর্ব: ৩য় পর্ব
লেখক : S M Rony Chowdhury

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here