গল্প : ভাবি যখন বউ (সিজন ২) প্রথম পর্ব

1597

:ভাবি আজ রাতে তো ভাইয়া বাসায় আসবে না। তাই তো !!

ভাবি: হুম আসবে না ।।
কেন? কি হয়েছে?

রাকিব : তাইলে আজ সারারাত গল্প করবো তোমার সাথে।
ভাবি: আহারে শখ কত বেচারার !!!
কেনো আমি তোমার সাথে গল্প করবো কেন?

রাকিব :ভাবি…!! এমন করে বলছ কেন?
মনে হচ্ছে আমি তোমার কেউ না!!
ভাবি: হা তুমি তোমার কেউই না ।এটা করে আবার কি বলার আছে।

রাকিব : তাই আমি তোমার কেউ না!!
তাইলে আজ থেকে এই বাড়ি থেকে আমি বের হয়ে যাচ্ছি আমাকে আর কখনো খুঁজে পাবে না। হারিয়ে যাব দূরে কোথাও।

ভাবী: ওরে আমার দেবর রে !!
কোথায় যাবা তুমি ??
তোমার তো কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই?? (হাসি দিয়ে)

রাকিব: যাওয়ার জায়গা নাই তো কি হয়েছে! যেদিকে দুচোখ যায় সেদিকেই চলে যাবো। তাতে তোমার কি? আমি তো তোমার কেউ না । আমাকে নিয়ে তোমার চিন্তা করতে হবে না এই বলে দিলাম।।

ভাবি: ওই রেগে যাচ্ছ মনে হচ্ছে।
রাকিব : আমি রাগলে তোমার কি?
ভাবী : হুম তা ঠিক।।( হাসি দিয়ে)
রাকিব: ওই ভাবি তুমি কিন্তু এভাবে হাসবা না।

ভাবি: ভাল পাগলের পালাই পরলাম।এখন দেখছি আমার হাসি তেও প্রবলেম।
আচছা আমি হাসলে তোমার কি? আমার হাসি আমি হাসবো।

রাকিব: বললাম তো হাসবা না কখনো এভাবে আমার সামনে।।
ভাবি: তুমি আমার হাসিতে কি পেলে??
রাকিব: কিছু পাইনি তবে আমার যেন কেমন লাগে । বুঝাতে পারব না তাই বলছি এভাবে আর কখনো আসবে না।।
ভাবি: আমি বুঝিনা তোমার মাঝে মাঝে যেন কি হয় কিছুই বুঝিনা।

রাকিব : বুঝতে হবে না আমি এমনি।।
ভাবি : তুমি বললেই হলো। তাই বলে কি তোমার কথায় আমি হাসবো না । না এখন থেকে আমি আরো জোরে জোরে হাসবো। তোমার যা কিছু তা হোক আমার কিছু যায় আসে যায় না।

(( এই বলে ভাবি আরো জোরে জোরে হাসতে থাকলো আর রাকিব কিছু বলছে না শুধু তাকিয়ে আছে ওর মুখের দিকে ।
কোন ধমক দিচ্ছেনা বা বিরক্তও হচ্ছে না। বরং সে শুধু দেখেই যাচ্ছে আর মুগ্ধ হচ্ছে।

অফুরন্ত হাসি মন ছুয়ে যাওয়ার মত। রাকিব অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে আর দেখছে সেই মুগ্ধকর হাসি ।।))

ভাবি হাসি থামিয়ে বলতে লাগলো:
ভাবি কি দেখছ এমন করে তাকিয়ে!!
রাকিব: কই কিছু নাতো ।
ভাবি: বললেই হলো?? তাহলে আমার দিকে ওমন করে তাকিয়ে কি দেখছো।।
রাকিব : আরে না কিছুই না।।
আচ্ছা ভাবী তুমি এত সুন্দর কেন আর তোমার হাসিটা এত সুন্দর কেন?
তুমি অন্য পাঁচটা মেয়ের থেকে আলাদা কেন।।
ভাবি: কি বলছো এসব ?
রাকিব : হা ঠিকিই বলছি। তুমি সুন্দরী, তুমি অপ্সরী , তুমি অনন্যা , তোমার ওই মেঘ কালো কেশ , ডাগর ডাগর দুটি চোখ যেন হরিণীর চোখ !! সত্যিই অবাক করার মতো।
ভাবি: বেশি বেশি বলা হচ্ছে কিন্তু।
রাকিব: না সত্যি ।সত্যি মন থেকে বলছি।
ভাবি: থাক এত সত বলতে হবে না। আমি জানি আমি এত সুন্দর না কিন্তু তোমার চোখে আমি কি সেটা আমি জানি না।।

যাক এখন মূল গল্পে আসা যাক । গল্পে রাকিব রাতুল আপন দুই ভাই। ওদের বাবা নেই ।খুব ছোট পরিবার । রাতুল হচ্ছে পরিবারের বড় ছেলে । বুঝতেই পারতেছেন একজন মধ্যবিত্ত ঘরে তাও আবার বাবা নেই । সামান্য বেতনের একটা চাকরি করে সংসার চালাতে খুব কষ্ট হয় । আর রাকিব পড়াশোনা করে অনার্স সেকেন্ড ইয়ারে।

এখন আপাতত পরিবার রাতুল একাই টানতেছে। শত কষ্টের মাঝেও ছিল তাদের মাঝে প্রচন্ড ভালোবাসা । সুখে-শান্তিতে বসবাস করতে থাকে যদিও চাকরির বেতন টা অল্প ।।

রাকিবের পড়াশোনার খরচ পুরোটাই বহন করে বলতে গেলে ওদের পরিবারটাই রাতুল একা পরিচালনা করে।

রাকিবের বয়স বাইশ । সে একজন শিক্ষিত ছেলে । তবে রাতুল এত পড়াশোনা করে নাই পরিবারের চাপে ।
তবে রাতুল এখন প্রপ্ত বয়্সক । তাকে বিয়ে করানোর জন্য পরিবারের সবাই উতলা হয়ে পরেছে। তবে সব থেকে বেশি উতলা হয়েছে রাকির। কারণ সে একটা রিলেশন আছে । অনেক চাপ দিচ্ছে বিয়ে করার জন্য । কিন্তু এখন ও বড় ভাই বিয়ে করে নাই । সে জন্য চাপ দিচ্ছে।

রাকিব যে মেয়েটার সাথে রিলেশানে আছে তার নাম কাজল। রিলেশানের প্রায় ৩ বছর । ওরা এক সাথেই পরে । কিন্তু একই ভার্সিটিতে নয় । ওরা পরিচিত হয়েছিল ফেইজবুকে ।

চলবে…

গল্প : ভাবি যখন বউ (সিজন ২)
পর্ব: প্রথম পর্ব
লেখক : S M Rony Chowdhury

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here